আজ ২৬শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ও ১৩ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ এবং ১৬ই শাবান, ১৪৪৫ হিজরি

বগুড়া-৪ হিরো আলম এবার স্বতন্ত্র নয়, ডাব মার্কার দলীয় প্রার্থী

  • In রাজনীতি
  • পোস্ট টাইমঃ ৩০ নভেম্বর ২০২৩ @ ০৭:৪৫ অপরাহ্ণ ও লাস্ট আপডেটঃ ৩০ নভেম্বর ২০২৩@০৭:৪৫ অপরাহ্ণ
বগুড়া-৪ হিরো আলম এবার স্বতন্ত্র নয়, ডাব মার্কার দলীয় প্রার্থী

।।বগুড়া প্রতিনিধি।।

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন আলোচিত কনটেন্ট ক্রিয়েটর আশরাফুল হোসেন আলম ওরফে হিরো আলম। বগুড়া-৪ (নন্দীগ্রাম-কাহালু) আসনে তিনি এবার স্বতন্ত্র প্রার্থী হচ্ছেন না। বাংলাদেশ সুপ্রিম পার্টির (বিএসপি) প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন দাখিল করবেন শোনা গেলেও একদিনের ব্যবধানে জানা গেল বাংলাদেশ কংগ্রেস মনোনীত জাতীয় জোটের গণঅধিকার পার্টি (পিআরপি) থেকে নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন হিরো আলম।

বৃহস্পতিবার (৩০ নভেম্বর) দলটির ডাব মার্কার মনোনীত প্রার্থী হিসেবে তিনি মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন। জেলা প্রশাসক ও রিটার্টিং অফিসার মো. সাইফুল ইসলামের কাছে মনোনয়নপত্র জমা দেন হিরো আলমের ব্যক্তিগত সহকারী সুজন রহমান শুভ। হিরো আলমের পক্ষে আগেরদিন বুধবার বাংলাদেশ সুপ্রিম পার্টির প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন ফরম তোলা হয়েছিল।

সুজন রহমান শুভ বলেন, হিরো আলম এবার স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন জমা দেয়নি। বগুড়া-৪ আসনে দলীয় প্রার্থী হিসেবেই মনোনয়নপত্র জমা দেওয়া হয়ছে। বাংলাদেশ কংগ্রেস জোটের ‘ডাব প্রতীক’ নিয়ে নির্বাচন করবেন হিরো আলম।

চলতি ২০২৩ সালের ১ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত বগুড়া-৪ ও বগুড়া-৬ আসনের উপ-নির্বাচনে একতারা মার্কায় একসঙ্গে দুটি আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী ছিলেন হিরো আলম। বগুড়া-৪ আসনে রেকর্ড গড়েও মাত্র ৮৩৪ ভোটের ব্যবধানে হেরে যান আলোচিত এই কনটেন্ট ক্রিয়েটর। জাসদের রেজাউল করিম তানসেন মশাল মার্কায় ২০ হাজার ৪০৫ ভোট পেয়ে এমপি নির্বাচিত হন। স্বতন্ত্র প্রার্থী হিরো আলম একতারা মার্কায় পেয়েছিলেন ১৯ হাজার ৫৭১ ভোট। তিনি বগুড়া-৬ সদরে বিপুল ভোটের ব্যবধানে পরাজিত হন। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনীত রাগেবুল আহসান রিপু নৌকা মাকায় ৩৩ হাজার ৪৬২ ভোট পেয়ে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। হিরো আলম একতারা মার্কায় পেয়েছিলেন ৪ হাজার ৫৪০ ভোট।

এরআগে ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সিংহ মার্কা নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে অংশ নিয়ে প্রথম আলোচনায় আসেন হিরো আলম। সেবার নির্বাচনের দিন কারচুপি ও নির্বাচন কমিশনের প্রতি অনাস্থা জানিয়ে ভোট বর্জনের ঘোষণা দেন। ওই নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী মোশারফ হোসেন ১ লাখ ২৬ হাজার ৭২২ ভোট পেয়ে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। মহাজোটের প্রার্থী রেজাউল করিম তানসেন পেয়েছিলেন ৮৪ হাজার ৬৭৯ ভোট এবং হিরো আলম পেয়েছিলেন মাত্র ৬৩৮ ভোট।

সবশেষ ২০২৩ সালের জুলাই মাসে ঢাকা-১৭ আসনের উপনির্বাচনে অংশ নেন এই কনটেন্ট ক্রিয়েটর। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনীত মোহাম্মদ আলী আরাফাত নৌকা মার্কায় ২৮ হাজার ৮১৬ ভোটে এমপি নির্বাচিত হন। হিরো আলম একতারা মার্কায় পেয়েছিলেন ৫ হাজার ৬০৯ ভোট।

নিউজ শেয়ারঃ

আরও সংবাদ

জনপ্রিয় সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

আলোচিত সংবাদ

নিউজ শেয়ারঃ
শিরোনামঃ
Verified by MonsterInsights