আজ ১৮ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ও ৪ঠা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ এবং ১২ই জিলহজ, ১৪৪৫ হিজরি

যে ভাবে ব্রণ কমাবেন

  • In লাইফস্টাইল
  • পোস্ট টাইমঃ ২২ মার্চ ২০২৩ @ ০৭:৩২ অপরাহ্ণ ও লাস্ট আপডেটঃ ২২ মার্চ ২০২৩@০৭:৩২ অপরাহ্ণ
যে ভাবে ব্রণ কমাবেন

ব্রণ ও ব্রণের দাগ কমাতে ভিন্ন কিছু উপায় রয়েছে।

মানসিক চাপ, হরমোন, আভাওয়ার পরিবর্তন, খাদ্যাভ্যাস এমনকি নতুন প্রসাধনীর ব্যবহার ইত্যাদি নানা কারণে মুখে ব্রণ দেখা দিতে পারে।
ব্রণ কমাতে ‘কড়া অ্যাসিড’ সমৃদ্ধ প্রসাধনী অথবা ঘরোয়া টোটকা-সহ অনেক কিছুই ব্যবহার করা হয়।
তবে কোনটা আমাদের ত্বকের জন্য বেশি কার্যকর সে বিষয়ে ওয়েলঅ্যান্ডগুড ডটকমে প্রকাশিত প্রতিবেদনে কয়েকজন ত্বক বিশেষজ্ঞের পরামর্শ দেন।

চুলের প্রসাধনীতে পরিবর্তন

‘সিন স্কিন অ্যান্ড হেয়ার কেয়ার’য়ের প্রতিষ্ঠাতা ও ‘হার্ভার্ড মেডিকেল স্কুল’ ও ‘ইউনিভার্সিটি অফ শিকাগো’র থেকে ডিগ্রি প্রাপ্ত ত্বক বিশেষজ্ঞ আইরিস রুবিন বলেন, “অনেকেই বুঝতে পারেন না যে চুলের প্রসাধনী যেমন- শ্যাম্পু ও কন্ডিশনার মুখে ব্রণ ও ব্রেক আউটের জন্য দায়ী।”

“এসব প্রসাধনিতে থাকা উপকরণ গোসলের সময় মাথার ত্বক থেকে মুখ, শরীরের সংস্পর্শে আসে। ধুয়ে ফেলার পরেও এর অবশিষ্টাংশ ত্বকে কয়েক ঘন্টা পর্যন্ত স্থায়ী হয়। পরে তা তোয়ালে বা বালিশের কাভারে আটকে যায়। যা ত্বকের ক্ষতি করে।”

তিনি আরও বলেন, “শ্যাম্পু বা কন্ডিশনার লোমকূপ আবদ্ধ হওয়ার মতো উপকরণ- নারিকেল তেল, নির্দিষ্ট ওয়াক্স এমনকি পলিমার থাকলে সেগুলো পরে বালিশের কাভারের সংস্পর্শে থেকে মুখে আসে। তাই সপ্তাহে অন্তত একবার বালিশের কাভার পরিবর্তন করা বা পরিষ্কার করা জরুরি।”

ব্রণ-প্রবণ ব্যক্তিদের ত্বক ও চুল পরিচর্যার প্রসাধনীর দিকে বিশেষ মনযোগী হতে হবে যেন তা লোমকূপকে আবদ্ধ করে না ফেলে।
এক্ষেত্রে নিয়মিত নন-কমেডোজেনিক শ্যাম্পু ও কন্ডিশনার ব্যবহার করা উপকারী।

ব্রণের দাগে স্যালিসাইলিক অ্যা্সিড ব্যবহার

‘এসএলএমডি স্কিনকেয়ার’য়ের প্রতিষ্ঠাতা ও ক্যালিফোর্নিয়ার বোর্ড প্রত্যয়িত ত্বক বিশেষজ্ঞ স্যান্ড্রা লি বলেন, “ব্রণ চলে যাওয়ার পাশাপাশি দাগ চলে যাওয়ার বিষয়টাও দারুণ। এক্ষেত্রে স্যালিসাইলিক অ্যাসিড সবচেয়ে ভালো কাজ করে।”
তিনি পরামর্শ দেন, “ব্রণ শুকিয়ে আসলে এর ওপরে স্যালিসাইলিক অ্যাসিড সমৃদ্ধ ‘পিম্পেল প্যাচ’ দিয়ে আটকে দিতে হবে। এক ঘণ্টা পরে তা তুলে নিয়ে আবার ব্যবহার করতে হবে। দ্বিগুণ স্যালিসাইলিক অ্যাসিড ব্যবহারে লোমকূপ পরিষ্কার হয় এবং প্রদাহ কমে।”

উন্নত মানের রাসায়নিক স্তর ব্যবহার

ব্রুকলিন নিবাসী ত্বক বিশেষজ্ঞ পাপড়ি সর্কার বলেন, “লাল মাথা ও ব্যথা যুক্ত ব্রণ কমাতে আমি কিছু উপাদান ব্যবহার করি; যা দ্রুত কাজ করে। ‘টপিক্যাল স্টেরয়েড’ আলতোভাবে ত্বকের ওপরে লাগানো উপকারী। উন্নতমানের রাসায়নিকের স্তর ত্বকের যত্নে খুব ভালো কাজ করে।”

“স্যালিসাইলিক অ্যাসিড সবচেয়ে বেশি কার্যকর। কেননা এটা কাজ করতে ত্বক ‘পিল’ করা আবশ্যক না। এটা দ্রুত কাজ করে। ২০ থেকে ৩০ মিনিট সময় অফিসে থাকা অবস্থাতেই করা যায়”, বলেন তিনি।

“স্যালিসাইলিক বা গ্লাইকোলিক অ্যাসিড ‘পিল’ ব্রণের ফোলাভাব কমায়। বিচ্ছিন্ন ব্রেক আউটে ব্যবহার করা হয়। দ্রুত ফলাফল পেতে ত্বক পিল করে নেওয়া যেতে পারে”, পরামর্শ দেন এই ত্বক বিশেষজ্ঞ।

সাধারণ স্টেরয়েড ব্যবহার

নিউ ইয়র্ক’য়ের বোর্ড প্রত্যায়িত ত্বক বিশেষজ্ঞ সিনিয়া কোবেটস বলেন, “ব্রণ ছোট লাল ‘বাম্প’, সাদা কেন্দ্র বিশিষ্ট ফুসকুড়ি অথবা বড়, ফোলা বা বিষ ফোড়ার মতো হতে পারে।”

বাসায় টপিকাল স্টেরয়েড যেমন- হাইড্রোকর্টিসোন থাকলে তা ব্যবহারে ব্রণের দাগ সপ্তাহখানেকের মধ্যে দূর হয়ে যায়। সক্রিয় ব্রণ কমাতে বেঞ্জয়েল পারক্সাইড বা স্যালিসাইলিক অ্যাসিড ব্যবহারে সংবেদনশীলতা থাকলে স্টেরয়েড উপকারী।

তবে তা সারা মুখে অথবা দীর্ঘক্ষণ ব্যবহার করা ঠিক নয়। এতে ত্বক পাতলা হয়ে যাওয়া, রক্তনালী দেখা দেওয়া এমনকি ব্রণের মাত্রা বেড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা দেখা দেয়।

নিউজ শেয়ারঃ

আরও সংবাদ

জনপ্রিয় সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

আলোচিত সংবাদ

নিউজ শেয়ারঃ
শিরোনামঃ
Verified by MonsterInsights