আজ ২৪শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ও ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ এবং ১৬ই জিলকদ, ১৪৪৫ হিজরি

খাদ্য নিরাপত্তায় জাতিসংঘ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রীর ৫ প্রস্তাব

  • In জাতীয়
  • পোস্ট টাইমঃ ২৫ জুলাই ২০২৩ @ ১০:৩৭ পূর্বাহ্ণ ও লাস্ট আপডেটঃ ২৫ জুলাই ২০২৩@১০:৩৮ পূর্বাহ্ণ
খাদ্য নিরাপত্তায় জাতিসংঘ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রীর ৫ প্রস্তাব

।।বিডিহেডলাইন্স ডেস্ক।।

খাদ্য ও সার রফতানির ওপর থেকে বিধিনিষেধ তুলে নিতে সমন্বিত পদক্ষেপ গ্রহণের ওপর জোর দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বিশ্বব্যাপী টেকসই, নিরাপদ ও পুষ্টিকর খাদ্য ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে জাতিসংঘের এক সম্মেলনে পাঁচ দফা প্রস্তাব উত্থাপন করেছেন তিনি। আধুনিক কৃষিতে বিনিয়োগের জন্য বহুপাক্ষিক উন্নয়ন ব্যাংক ও বেসরকারি উদ্যোক্তাদের উৎসাহিত করার প্রয়োজনীয়তার ওপরও গুরুত্বারোপ করেন প্রধানমন্ত্রী।

শুক্রবার জাতিসংঘের বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচি (এফএও) সদর দফতরে জাতিসংঘ খাদ্য ব্যবস্থা সামিট + ২ স্টকটেকিং মোমেন্ট সম্মেলনের এক অধিবেশনে প্রস্তাব উপস্থাপন করেন প্রধানমন্ত্রী।

‘খাদ্য ব্যবস্থা ও জলবায়ু কর্মপন্থা’ বিষয়ক পূর্ণাঙ্গ অধিবেশনে প্রধানমন্ত্রী তার প্রস্তাবে বলেন, জলবায়ু-সহনশীল খাদ্য ব্যবস্থার জন্য জোট সক্রিয় করতে হবে, ২০২১ সালের জাতিসংঘ খাদ্য ব্যবস্থা শীর্ষ সম্মেলনে এই জোটের সহ-নেতৃত্ব প্রদানে বাংলাদেশ সম্মত হয়। আরেক প্রস্তাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘উন্নত দেশগুলোকে জলবায়ু-অভিযোজিত কৃষি-খাদ্য ব্যবস্থার প্রতি যথাযথ মনোযোগ দিয়ে জলবায়ু অর্থায়নের জন্য খাদ্য ব্যবস্থার রূপান্তরকে অগ্রাধিকার হিসাবে বিবেচনা করতে হবে।’ শেখ হাাসিনার অন্য প্রস্তাব হলো, ‘জাতিসংঘ খাদ্য ব্যবস্থা সমন্বয় কেন্দ্রকে গবেষণা ও উদ্ভাবনে আন্তঃশৃঙ্খলা সহযোগিতার মাধ্যমে জ্ঞান-ব্যবস্থাপনা বাড়াতে হবে।’

প্রধানমন্ত্রী অপর প্রস্তাবে বলেন, ‘নিম্ন ও মধ্যম আয়ের দেশগুলোতে খাদ্য এবং সারের চাহিদার নিরিখে জলবায়ু-ইতিবাচক সমাধান প্রচারে বেসরকারি খাতকে সক্রিয়ভাবে সম্পৃক্ত করতে হবে।’ বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী আরও প্রস্তাব করেছেন যে “ডেল্টা এবং উপকূলীয় অঞ্চলের মতো জলবায়ু ঝুকিপূর্ণ অঞ্চলে কার্যকর কৃষি-খাদ্য প্রযুক্তি ব্যবহারের জন্য আন্তর্জাতিক অংশীদারিত্ব জোরদার করা দরকার।”

খাদ্য উৎপাদন, প্রক্রিয়াকরণ, ব্যবহার ও বিন্নাসে জলবায়ু-নিরপেক্ষ বিনিয়োগের প্রয়োজনীয়তা তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, ‘এর জন্য অবশ্য আমাদের যথেষ্ট রাজনৈতিক সদিচ্ছা এবং আন্তর্জাতিক জনমত প্রয়োজন।’ বাংলাদেশ সম্প্রতি গ্লোবাল মিথেন অঙ্গীকারে যোগদান করেছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আশা করি, এই উদ্যোগের প্রধান পৃষ্ঠপোষকরা তাদের প্রতিশ্রুত আর্থিক ও প্রযুক্তিগত সহায়তা নিয়ে আসবে।’ বাংলাদেশ সরকার জি২০ প্রস্তাবিত আন্তর্জাতিক বায়ো-ফুয়েল অ্যালায়ন্সের মতো করে উন্নয়ন অনুসরণ করছেবলে জানান প্রধানমন্ত্রী।

শেখ হাসিনা বলেন,“আমরা আমাদের ক্ষুদ্র চাষীদের দ্বারাও সেচের জন্য সৌর বিদ্যুতের ব্যবহার উৎসাহিত করছি। আমাদের কৃষি, কম নির্গমনকারী পশুসম্পদ এবং বর্জ্য ব্যবস্থাপনার জন্য সাশ্রয়ী প্রযুক্তিতে প্রবেশাধিকার দরকার।’ প্রধানমন্ত্রী বঙ্গোপসাগরে বাংলাদেশের সামুদ্রিক এলাকায় টেকসই গভীর সমুদ্রে মাছ ধরার জন্য বিদেশী বিনিয়োগের আমন্ত্রণ জানান। জলবায়ু সংকটের জন্য একটি টেকসই এবং রূপান্তরিত খাদ্য ব্যবস্থায় কাজ করা প্রয়োজন উল্লেখ করে তিনি বলেন, “আর বিলম্ব না করে কী করা দরকার, তা আমাদের চিহ্নিত করতে হবে। খাদ্য নিরাপত্তা এখন জলবায়ু ন্যায় বিচারের সঙ্গে সম্পর্কিত।”

শেখ হাসিনা বাংলাদেশের প্রচেষ্টার কথাও তুলে ধরেন যেখানে এর কৃষি বিজ্ঞানী এবং সম্প্রসারণ কর্মকর্তারা কৃষকদের সঙ্গে জলবায়ু-সহনশীল কৃষি-খাদ্য সমাধানের উন্নয়নে কাজ করছেন। তিনি বলেন,“আমাদের সরকার আমাদের কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে এবং গবেষণা প্রতিষ্ঠানের বাজেট এবং সক্ষমতা উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধি করেছে।”

প্রধানমন্ত্রী বলেন, গত ১৪ বছরে তাদের বিশেষজ্ঞরা ৬৪২টি নতুন প্রযুক্তি উদ্ভাবন ও প্রবর্তন করেছেন এবং এগুলো শক্তি, পানি, সার, বীজ এবং কীটনাশক ব্যবহারের দক্ষতা বাড়াতে সাহায্য করেছে। তিনি বলেন, “আমরা সাব-সাহারান আফ্রিকা এবং অন্যত্র জলবায়ু-চাপযুক্ত সেটিংসের সাথে আমাদের দক্ষতা ভাগ করে নিতে প্রস্তুত আছি।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বক্তৃতা দেওয়ার সময় এফএও সদর দপ্তরের পূর্ণাঙ্গ অধিবেশ কক্ষে এবং আরও দুটি হলে বিপুল সংখ্যক শ্রোতা উপস্থিত ছিলেন। অংশগ্রহণকারীরা হাততালি দিয়ে তাঁর বক্তব্যকে সমর্থন করেন। সম্মেলনের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ইতালির প্রধানমন্ত্রী জর্জিয়া মেলোনি, ইথিওপিয়ার প্রধানমন্ত্রী আবি আহমেদ, নেপালের প্রধানমন্ত্রী পুষ্প কমল দাহাল, সামোয়া ফিয়ামের প্রধানমন্ত্রী নাওমি মাতাফা এবং জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস বক্তৃতা করেন।

নিউজ শেয়ারঃ

আরও সংবাদ

জনপ্রিয় সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

আলোচিত সংবাদ

নিউজ শেয়ারঃ
শিরোনামঃ
Verified by MonsterInsights