আজ ১৯শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ও ৫ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ এবং ১৩ই জিলহজ, ১৪৪৫ হিজরি

জলবায়ু পরিবর্তন: দরিদ্র দেশগুলোর ঋণ মওকুফ ও তহবিল ৩ গুণ বাড়ানোর তাগিদ

  • In শীর্ষ
  • পোস্ট টাইমঃ ২০ জুন ২০২৩ @ ১২:৪৩ পূর্বাহ্ণ ও লাস্ট আপডেটঃ ২০ জুন ২০২৩@১২:৪৩ পূর্বাহ্ণ
জলবায়ু পরিবর্তন: দরিদ্র দেশগুলোর ঋণ মওকুফ ও তহবিল ৩ গুণ বাড়ানোর তাগিদ

।।বিডিহেডলাইন্স ডেস্ক।।

যে পথে বিশ্ব জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলার চিন্তা-তৎপরতা চালাচ্ছে; তা আমুল বদলে ফেলার তাগিদ দিয়েছেন একজন জলবায়ু বিশেষজ্ঞ। জলবায়ু পরিবর্তনে সবথেকে ক্ষতিগ্রস্ত দেশগুলোর ঋণ মওকুফ ও এ খাতে তহবিল বরাদ্দ ৩ গুণ বাড়ানোর তাগিদ দিয়েছেন অবিনাশ প্রসাদ। তিনি মনে করছেন, উন্নয়নশীল দেশগুলোতে জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় বিলিয়ন ডলারের হিসেবে অর্থ খরচ করলে চলবে না; অর্থ ব্যয় করতে হবে ট্রিলিউনের হিসেবে। একইসঙ্গে বিদেশি সহায়তার প্রথাগত ধারণাতেও বদল আনতে হবে। জলবায়ু খাতে বরাদ্দ বাড়াতে ট্যাক্স আরোপ করতে হবে শিপিং-এর মতো খাতগুলোতে।

সেই ১৯৯৫ সাল থেকে জাতিসংঘ প্রতি বছর জলবায়ু সম্মেলনের আয়োজন করে যাচ্ছে। সেই সময় থেকে কার্বন নিঃসরণের লাগাম টানতে বিশ্বের জাতিরাষ্ট্রগুলো এবারের আগ পর্যন্ত ২৬টি সম্মেলনের আয়োজন করেছে। তাতে তাপমাত্রা বৃদ্ধিতে লাগাম তো টানা যায়ইনি, উল্টো বেড়েছে কার্বন নিঃসরণের হার। জলবায়ু সম্মেলনগুলোর মধ্যে সবথেকে তাৎপর্যপূর্ণটি সম্ভবত প্যারিস সম্মেলন। ২০১৬ সালে ফ্রান্সের জলবায়ু সম্মেলনে হওয়া চুক্তিতে তাপমাত্রা বৃদ্ধির হার শিল্পযুগ-পূর্ববর্তী সময়ের তুলনায় ২ ডিগ্রি কিংবা পারলে ১.৫ এর মধ্যে সীমিত রাখার ব্যাপারে সমঝোতা হয়। অথচ এর ৫ বছরের মাথায় ২০২১ সালের অগাস্টে ২৬তম গ্লাসগো সম্মেলনের আগে মানবতার জন্য ‘লাল সংকেত’ প্রকাশ করে জাতিসংঘ। ওই সময় তারা হিসেব করে দেখায়, বিদ্যমান ধারা অব্যাহত থাকলে মাত্র দুই দশকেই তাপমাত্রা শিল্পযুগের তুলনায় ১.৫ শতাংশ বাড়বে।

অবিনাশ বার্বাডোসের প্রধানমন্ত্রী মিয়া মটলির অর্থনৈতিক উপদেষ্টা। এই সপ্তাহে মটলি ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁর সঙ্গে বিশ্বনেতাদের একটি জলবায়ু বিষয়ক বৈঠকে বসতে যাচ্ছেন। ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট লুলা দা সিলভা, জার্মানির ওলাফ শোলজ এবং চীনা প্রধানমন্ত্রী লি কিয়াং সহ এই বৃহস্পতি ও শুক্রবার প্যারিসে শীর্ষ সম্মেলনে ৫০ টিরও বেশি রাষ্ট্র ও সরকার প্রধান অংশ নেবেন বলে আশা করা হচ্ছে।

জলবায়ু, ঋণ আর উন্নয়নের যোগসূত্র নিয়ে আমাদের নতুন করে ভাবতে হবে। যুক্তরাজ্যের অবজারভার পত্রিকাকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বলেছেন অবিনাশ প্রসাদ। ‘আজকে আমরা যা দেখছি, তা পুরোপুরি নতুন। বিভিন্ন দেশ জলবায়ু দুর্যোগের কবলে পড়ার ঘটনা ঘটতে শুরু করেছে। বিভিন্ন দেশ ডুবছে।

জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলার বরাদ্দ ৩ গুণ বাড়ানোর পরামর্শ দিয়েছেন অবিনাশ। বিশ^ব্যাংক এবং এর মতো অন্যান্য আর্থিক প্রতিষ্ঠান ও প্রাইভেট সেক্টরকে বিপুল পরিমাণ নগদ অর্থ নিয়ে এগিয়ে আসতে বলছেন তিনি। সরকারি তহবিলের যথাযথ ব্যবহার এবং বিনিয়োগের ক্ষেত্রে বিদ্যমান প্রতিবন্ধকতাগুলি দূর করার বিধি প্রণয়নের কথা বলেছেন তিনি। ‘এটি বিশ্বের সবচেয়ে বড় আর্থিক সুযোগ,’ বলেছেন অবিনাশ।

প্যারিসে, মটলি প্রসাদকে সঙ্গে নিয়ে ‘ব্রিজটাউন এজেন্ডা’ নির্ধারণ করবেন। প্রসঙ্গত, ব্রিজটাউন বার্বাডোসের রাজধানী যেখানে এই প্রসঙ্গে গত বছর প্রথম আলোচনা হয়েছিল। আসছে সম্মেলনে তারা ভয়াবহ জলবায়ু বিপর্যয়ের সম্মুখীন কিছু দরিদ্র দেশের জন্য ঋণ মওকুফের দাবি তুলবেন। একইসঙ্গে বিশ্বব্যাংকসহ বিশ্বের বহুপাক্ষিক উন্নয়ন ব্যাঙ্কগুলি থেকে তহবিল বরাদ্দ তিনগুণ বৃদ্ধির দাবি জানাবেন তারা। তাছাড়া জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলার তহবিল বাড়াতে শিপিং এর মতো খাতগুলোতে নতুন করে করারোপের দাবিও জানানো হবে বার্বাডোসের পক্ষ থেকে।

২০২২ সালের অক্টোবরে প্রকাশিত জাতিসংঘের পরিবেশবিষয়ক প্রতিবেদন অনুযায়ী, যদি ২০৩০ সাল পর্যন্ত পূর্ণভাবেও সব দেশ তাদের দেওয়া প্রতিশ্রুতি পূরণ করে, তারপরও বিশ্বের তাপমাত্রা বৃদ্ধি ২.৫ ডিগ্রিতে পৌঁছাবে, যার অর্থ হবে চরম বৈরী আবহাওয়া।

নিউজ শেয়ারঃ

আরও সংবাদ

জনপ্রিয় সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

আলোচিত সংবাদ

নিউজ শেয়ারঃ
শিরোনামঃ
Verified by MonsterInsights