আজ ২রা ডিসেম্বর, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ ও ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ এবং ১৮ই জমাদিউল আউয়াল, ১৪৪৫ হিজরি

ভারতে ট্রেন দুর্ঘটনায় এখন পর্যন্ত নিহত ২৩৩

  • In আন্তর্জাতিক
  • পোস্ট টাইমঃ ৩ জুন ২০২৩ @ ০৯:০১ পূর্বাহ্ণ ও লাস্ট আপডেটঃ ৩ জুন ২০২৩@১০:২৯ পূর্বাহ্ণ
ভারতে ট্রেন দুর্ঘটনায় এখন পর্যন্ত নিহত ২৩৩

।। ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক।।

ভারতের পূর্বাঞ্চলীয় ওড়িষ্যা রাজ্যে তিন ট্রেনের সংঘর্ষে এখন পর্যন্ত ২৩৩ জন নিহত এবং আরও নয় শতাধিক মানুষ আহত হওয়ার কথা জানা গেছে। কলকাতা থেকে চেন্নাই যাত্রা শুরু করা একটি ট্রেন বালাসোর জেলার বাহাঙ্গাবাজার এলাকায় ব্যাঙ্গালোর থেকে কলকাতায় আসতে থাকা একটি ট্রেনের সংঘর্ষ হয়। এক মালবাহী ট্রেনও এই সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। গতকাল শুক্রবার স্থানীয় সময় সন্ধ্যা ৭টার দিকে ভারতের অন্যতম ভয়াবহ এই দুর্ঘটনার পর উদ্ধার তৎপরতা এখনো চলছে।

ওড়িষ্যার মুখ্যমন্ত্রী প্রদীপ জেনা জানিয়েছেন, ঘটনাস্থলে অন্তত ২০০ অ্যাম্বুলেন্স পাঠানো হয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে লাইনচ্যুত হয়ে পড়া একটি যাহীবাহী ট্রেনের ওপর দিয়ে আরেকটি যাত্রীবাহী ট্রেন উঠে পড়লে এই দুর্ঘটনা ঘটে। অনেকেই বগির ভেতর ও নিচে আটকা পড়ে থাকায় হতাহতের সংখ্যা বাড়তে পারে।

ইন্ডিয়ান রেলওয়ে জানিয়েছে, করমণ্ডল এক্সপ্রেস ও হাওড়া সুপারফাস্ট এক্সপ্রেস ট্রেন দুর্ঘটনায় পড়েছে। এখন পর্যন্ত ২৩৩ জনের মরদেহ উদ্ধারের কথা জানিয়েছেন প্রদীপ জেনা। এর আগে তিনি জানান, ঘটনাস্থলে আরও অতিরিক্ত ১০০ চিকিৎসক পাঠানো হয়েছে।

ট্রেন দুর্ঘটনায় গভীর শোক প্রকাশ করেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। নিহতদের পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন তিনি। এক টুইট বার্তায় তিনি লেখেন দুর্ঘটনাস্থলে উদ্ধার অভিযান চলছে আর আক্রান্তদের সম্ভাব্য সব সহযোগিতা দেয়া হচ্ছে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ ঘটনাটিকে ‘গভীর যন্ত্রণার’ হিসেবে চিহ্নিত করেছেন।

বেচে যাওয়া এক যাত্রী বলেন, ‘দুর্ঘটনার সময় ১০-১৫ জন আমার ওপড় পড়ে যায় আর আসি সব অন্ধকার দেখি। আমি ছিলাম সবচেয়ে নিচে।’ আরেক যাত্রী বলেন, হাত এবং ঘাড়ের পেছনে আঘাত পেয়েছি। ট্রেন থেকে বেরিয়ে আসার পর দেখি, কারো হাত নেই, কারো পা নেই কারো মুখই বিকৃত হয়ে গেছে।’

দুর্ঘটনার পর ওড়িষ্যায় একদিনের শোক ঘোষণা করা হয়েছে। ধারনা করা হচ্ছে স্থানীয় সময় সন্ধ্যা সাতটার দিকে শালিমার-চেন্নাই করমন্ডল একপ্রেস ট্রেনের কয়েকটি বগি লাইনচ্যুত হয়ে পড়ে। এর মধ্যে কয়েকটি পাশের আরেকটি লাইনের ওপর পড়ে। ওই সময় যশবন্তপুর থেকে হাওড়ায় আসতে থাকা হাওড়া সুপারফাস্ট একপ্রেস ট্রেন ওই লাইনচ্যুত বগিগুলোর ওপর উঠে পড়ে। ভারতীয় কর্মকর্তারা জানিয়েছেন ঘটনাস্থলে থাকা আরও একটি মালবাহী ট্রেনও দুর্ঘটনায় পড়ে। এর চেয়ে বেশি কিছু এখন পর্যন্ত জানাতে পারেননি কর্মকর্তারা।

বেচে যাওয়া কয়েক যাত্রী প্রথমেই উদ্ধার তৎপরতা শুরু করে। আহতদের হাসপাতালে নেয়ায় এগিয়ে আসে স্থানীয় বাস কোম্পানিগুলো। দুর্ঘটনার পর উদ্ধারকাজে নেমেছেন ভারতের ভারতের ন্যাশনাল ডিজাস্টার রিলিফ ফোর্সের (এনডিআরএফ) সদস্যরাও। রয়েছে ওডিশা ডিজাস্টার র‍্যাপিড অ্যাকশন ফোর্সও (ওডিআরএএফ)। উদ্ধারকাজে ভারতের বিমানবাহিনীর সহায়তা চেয়েছেন কেন্দ্রীয় রেলমন্ত্রী অশ্বিনী বৈষ্ণব।

বিশ্বের অন্যতম বড় রেল নেটওয়ার্ক ভারতের। দেশটিতে টেন দুর্ঘটনা সাধারণ বিষয়। তবে এত বেশি প্রাণহানির ঘটনা সাম্প্রতিক বছরগুলোতে আর দেখা যায়নি। ভারতের সবচেয়ে বড় ট্রেন দুর্ঘটনা ঘটে ১৯৮১ সালে। সেবার অতিরিক্ত যাত্রীবাহী একটি ট্রেনকে লাইন থেকে উড়িয়ে নিয়ে যায় ঘূর্ণিঝড়। বিহার রাজ্যের ওই ঘটনায় প্রান হারায় আট শতাধিক মানুষ।

এসআর/তারিখ:০৩০৬২৩/৮:৫৫

নিউজ শেয়ারঃ

আরও সংবাদ

জনপ্রিয় সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

আলোচিত সংবাদ

নিউজ শেয়ারঃ
 ঘোষণাঃ
বিডি হেডলাইন্স ২৪ ডট কম
শিরোনামঃ
Verified by MonsterInsights